আপনি কি কম পুজিতে স্মার্ট এবং রুচিশীল ব্যবসা আইডিয়া খুঁজছেন ?



অল্প টাকায় অনেক ধরনের ব্যবসা করা যায়।  কিন্তু অনেক সময় সব ধরনের ব্যবসায় আমাদের পক্ষে করা সম্ভব হয় না।  কারণ আমাদের সাধারণত প্রেসটিজ এর দাম বেশি।  অল্প টাকায় যে কোন ব্যবসায় যখন আমরা করব বলে ভাবি মনের এক কোনায়  কে যেন বলে ওঠে, “তুই এই ব্যবসা করবি প্রেস্টিজ পাংচার হয়ে যাবে রে,  তুই তো অনেক নামিদামি ব্যবসা করবি” ইত্যাদি নানান পদের অজুহাত সামনে এসে দাঁড়ায়। যদি আপনার ক্ষেত্রে এমনটি হয় তবে আমার কাছে আজকে একটি চমৎকার ব্যবসা আইডিয়া রয়েছে যেটা কে আপনি হেয় করতে পারবেন না।  কারণ এটি একটি সৌখীন এবং স্মার্ট ব্যবসা ।  সামান্য একটু দক্ষতা নাম মাত্র অল্প কিছু পুঁজি এবং সাথে রুচিশীলতা থাকলেই আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।  চলুন আমরা জেনে নেই সেই চমৎকার ব্যবসাটি সম্পর্কে।

 পোশাক যেহেতু মানুষের একটি নিত্য প্রয়োজনীয় বস্তু সেহেতু মানুষ যতদিন বেঁচে থাকবে ততদিন তার পোশাকের প্রয়োজন হবে। কিন্তু অনেক সময় আমাদের চোখে যেনতেন পোশাক মনে ধরে না । পোশাকে চাই বৈচিত্র চাই নতুন নতুন ডিজাইন।  এই পোশাকের নতুন নতুন ডিজাইন আকর্শনীয় নকশা করার জন্য ব্লক প্রিন্ট হতে পারে একটি আদর্শ কৌশল। আমাদের দেশে ব্লক প্রিন্ট এর কাপড়ের বেশ কদর রয়েছে বিশেষ করে বিভিন্ন সৌখিন স্টোরগুলোতে এই ব্লক প্রিন্টের কাপড় গুলো পাওয়া যায়।  আমরা চাইলে এই ব্লক প্রিন্ট এর কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারি।  দেখে নেয়া যাক কিভাবে আমরা সেই রুচিশীল ব্লক প্রিন্ট এর ব্যবসা করতে পারি।

সবার আগে জেনে নেয়া যাক ব্লক প্রিন্ট কি? 

ব্লক প্রিন্ট হচ্ছে এমন একটা কৌশল যেটার মাধ্যমে একটি কাপড় কে আকর্ষণীয় ভাবে নকশা করা যায়। আর এই নকশাগুলো করা হয় বিশেষ কৌশল অবলম্বন করে।   সাধারণত বড় টেবিলের ওপর এক রঙের কাপড় রেখে সেটার উপরে কাঠের নকশাকৃত ডাইস এর মধ্যে রং লাগিয়ে চাপ দিয়ে নকশার ছাপ দেওয়া হয়। আর এই কাজগুলো সাধারণত প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লোকেরাই করে থাকেন । প্রশিক্ষণ ছাড়া আপনি ব্লক প্রিন্ট এর কাজ করতে পারবেন না।

ব্লক প্রিন্ট এর পাশাপাশি আপনি চাইলে বাটি প্রিন্টের কাজ চালিয়ে যেতে পারে।  তো বাটি প্রিন্টের কাজ কিভাবে করা হয় সেটা জেনে নেয়া যাক।  সাধারণত এক রঙের সাদা কাপড় কে বিশেষ কৌশলে সুতা দিয়ে বেঁধে তরল রং এর মধ্যে ডোবানো হয় এবং এর ফলে সাদা  কাপড় গুলোতে বিভিন্ন নকশা হয়ে যায়।  ব্লক প্রিন্ট অথবা বাটি প্রিন্ট দুই ধরনের কাজ আসলে আপনাকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে শিখে নিতে হবে।

কোথায় প্রশিক্ষণ করবেন? 

 বাংলাদেশের বিভিন্ন এনজিও রয়েছে জানান সাধারণত সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এই ধরনের প্রশিক্ষণ প্রদান করে।  বিশেষ করে বিভিন্ন এলাকা গুলোতে এ ধরনের প্রশিক্ষণ এর প্রবণতা বেশি দেখা যায়।  তবে যারা ঢাকা শহরে বসবাস করেন তারা যদি এই ব্যবসা ঠিক করতে চান আপনাদের জন্য সুখবর আছে।  আপনি অল্প টাকা বিনিয়োগ করে এই প্রশিক্ষণটি নিতে পারেন।  ঢাকা তোরা এবং টঙ্গীতে ব্লক প্রিন্ট স্ক্রিন প্রিন্ট এবং বাটিক প্রিন্ট প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।  ২ হাজার টাকা থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকার মধ্যে আপনি এই প্রশিক্ষণটি গ্রহণ করতে পারবেন। আপনি যদি গুগল কে জিজ্ঞেস করেন কোথায় ব্লক প্রিন্ট বাটি প্রিন্টের প্রশিক্ষণ দেয়া হয় তাহলে আপনি খুব সহজে সেই ঠিকানাটা পেয়ে যাবেন।  এছাড়াও আছে চাইলে বিভিন্ন যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গুলোতে যোগাযোগ করে দেখতে পারেন।  সেইসাথে বিভিন্ন টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট গুলোতেও যোগাযোগ করতে পারেন। আর্টিকেল এর একদম নিচে আমি ঠিকানা গুলো দিয়ে দেয়ার চেষ্টা করব।

এ ব্যবসা করতে কেমন পুঁজি লাগবে? 

 আপনি কতটা বড় পরিসরে অথবা কতটা ছোট পরিসরে এই ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছেন সেটার উপরেই নির্ভর করছে আপনার পুঁজির পরিমাণ। যদি আপনি বাড়িতেই ই-প্রিন্ট-এর কাজটি শুরু করতে চান তবে পুঁজির পরিমাণ বেশি লাগবে না।  আর যদি আপনি চান যে একটি দোকান নিয়ে এই ব্যবসাটি শুরু করবেন সেক্ষেত্রে আপনার পুঁজির পরিমাণ বাড়াতে হবে।  সাধারণত একটা দোকান নিতে গেলে আপনাকে কিছু টাকা এডভান্স করতে হয় সাথে সাথে আনুষঙ্গিক অন্যান্য খরচ রয়েছে যেমন দোকান ভাড়া, বিদ্যুৎ বিল, সিকিউরিটি বিল, মাঝে মাঝে এলাকার বড় ভাইদের কে চাঁদা দেওয়া, হিজড়াদের হিসাবটা বাদ দেবো কেন ইত্যাদি। তবে আপনি যদি এই ছোট্ট পরিসরে ব্যবসাটি শুরু করতে চান তাহলে ২০ থেকে ৫০ হাজার টাকার মধ্যেই এই ব্যবসাটা শুরু করতে পারবেন। যে কোন ব্যবসায়ী আপনাকে এই পরামর্শ দেবে যে প্রাথমিক অবস্থায় আপনি অবশ্যই কম পুঁজি নিয়ে শুরু করুন।  কেননা আপনাকে এই ব্যবসাটি শিখতেও মিনিমাম ৬মাস সময় ব্যয় করতে হবে।  এমনও হতে পারে যে ৬মাসের মধ্যে আপনি এই ব্যবসা টিকিয়ে নাও রাখতে পারেন।  তাইতো প্রাথমিক অবস্থায় কম পুঁজি নিয়ে শুরু করাই বুদ্ধিমানের কাজ।

ব্যবসাটি কিভাবে শুরু করব? 

 কোন কাজ শুরু করার আগে সাধারণত আপনার সিদ্ধান্ত ই বলে দেবে আপনি কি করবেন।  কোন পথে এগুলো আপনি আপনার গন্তব্যে পৌছাতে পারবেন।  মনে তো বাদ দিয়ে আসল কথা বলি,  এ ব্যবসা শুরু করতে হলে সর্বপ্রথম আপনাকে প্রশিক্ষণ নিতে হবে।  নিচে উল্লেখিত ঠিকানায় অথবা আপনার পরিচিত যে কোন জায়গা থেকে আপনি আগে প্রশিক্ষণ নিয়ে নিন।  যেখান থেকে আপনি প্রশিক্ষণ নেবেন সেখানে আপনাকে তারা দিকনির্দেশনা দিয়ে দেবে যে কিভাবে আপনি এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।  যদি আপনি প্রশিক্ষণ না নেন তাহলে এই ব্যবসার আগাগোড়া কিছুই বুঝবেন না।  তাইতো প্রশিক্ষণ একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই ব্যবসাটি শুরু করার জন্য। যতনে প্রশিক্ষণ নেয়া হয়ে যাবে তখন আপনি আপনার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে তারপরে ব্যবসাটি শুরু করুন।

 কোথায় বিক্রি করব কিভাবে বিক্রি করব? 

 আপনি এই পণ্য বিক্রি করার জন্য কর্মচারী রাখতে পারেন অথবা নিজেও মার্কেটিং করতে পারেন।  আপনি যদি দোকান করেন তাহলে তো অবশ্যই আপনি দোকানে এগুলো বিক্রি হবে পাশাপাশি আপনি যদি মনে করেন আরো বিক্রি বাড়াতে হবে তাহলে আপনার এলাকায় যতগুলো বুটিক হাউজ রয়েছে সেগুলোতে যোগাযোগ করুন এবং তাদেরকে আপনার কাজের স্যাম্পল দেখান।  যদি তারা আপনার স্যাম্পল গুলো পছন্দ করে তাহলে অবশ্যই আপনার কাছ থেকে তারা এগুলো নিয়ে বিক্রি করতে আগ্রহ প্রকাশ করবে।  আপনি যদি ২০ থেকে ৩০ টি বুটিক হাউসের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসা কেউ থামিয়ে রাখতে পারবে না। এছাড়াও আপনি যদি আরো বৃহৎ পরিসরে ব্যবসাটি শুরু করতে চান তাহলে ফেসবুক পেজ খুলে নিতে পারেন এছাড়াও বিভিন্ন ছোট ছোট শহরগুলোতে এবং জেলা  পর্যায়ের বুটিক হাউসগুলোতেও যোগাযোগ করতে পারেন।


এই ব্যবসাটি আসলে কেমন লাভজনক ? 

প্রতিটি ব্যবসায়ী লাভজনক যদি আপনি  সেটি একাগ্রতা, ভালোবাসা, যত্নের সাথে করতে পারেন। কেননা আন্তরিকতার সাথে যে কোন কাজ কে সফল করে তোলা যায়। সত্যি সত্যি যদি আপনি ভালোবেসে এই কাজ ঠিক করেন তাহলে এখান থেকে আপনি মোটা অঙ্কের মুনাফা আনতে পারবেন।  যদি সত্যি সত্যিই লাভের অংকটা আমার মুখ থেকে শুনতে চান তাহলে বলব যেহেতু প্রাথমিক পর্যায়ে আমরা কম পুজির ব্যবসা শুরু করছে সে তো এখান থেকে বেশি লাভের আশা করা ঠিক হবে না।  তবে আমরা যদি ২০ থেকে ৫০হাজার টাকার ব্যবসা শুরু করি । ধরে নেয়া যায় যে, মাসে ১০থেকে ৩০হাজার (প্রথম আলোর প্রতিবেদন থেকে) টাকা ইনকাম করা সম্ভব।

প্রয়োজন বিশেষ দক্ষতা অথবা যোগ্যতা

আমাদের সমাজে এখন আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে তাইতো পোশাক নির্বাচনের সময় আমরা অনেক দিক বিবেচনা করে তারপর পোশাক নির্বাচন করি । শপিং করার সময় এখন অনেকেই ট্রেন্ডিং শব্দটি ব্যবহার করে থাকেন।  অর্থাৎ পোশাক কেনার সময় বর্তমান বাজারে যে সকল ডিজাইন গুলো ভালো চলছে সেগুলো কিনতে আমরা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি।  এখন আপনি যদি সে ধরনের নকশা বানাতে ব্যর্থ হন তাহলে আপনার পণ্যগুলো ভালো চলবে না।  রুচিশীল এবং আধুনিক ডিজাইনের পোশাক বা নকশা তৈরির দক্ষতা থাকলে আপনি এই ব্যবসায় খুব সহজেই  সবার নজর কাড়তে পারবেন ।




আপনি কি কম পুজিতে স্মার্ট এবং রুচিশীল ব্যবসা আইডিয়া খুঁজছেন ? আপনি কি কম পুজিতে স্মার্ট এবং রুচিশীল ব্যবসা আইডিয়া  খুঁজছেন ? Reviewed by shorolmanush on August 13, 2019 Rating: 5

1 comment:

Powered by Blogger.