জেনে নিন ব্যবসায় সফল হওয়ার নিনজা টেকনিক!

 আপনার ক্ষুদ্র বা ছোট ব্যবসা ব্যর্থ হওয়া মানে এই না যে আপনি ব্যর্থ। যেকোনো ছোট বা বড় ব্যবসা ক্ষতির সম্মুখীন হতেই পারে। তবে সেই ব্যর্থতাকে আলিঙ্গন না করে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। তবেই আপনি সফল হতে পারবেন।

ছোট ব্যবসা ব্যর্থ হওয়ার অনেক কারনই থাকতে পারে, তবে তার মধ্যে যেই কারনের জন্য ব্যবসা সব চেয়ে বেশী ক্ষতির সম্মুখীন হয় তাই নিয়েই আজকেই এই লেখা। আশা করছি পাঠকগন সম্পূর্ণ লেখাটি পড়ে কিছু চিন্তার খোরাক পাবেন।

১. কারন ছাড়া ব্যবসা শুরু করা: বিখ্যাত ওয়েবসাইট ফোবেস এর মতে, বিশ্বে প্রতি মাসে ৫ লক্ষ এর বেশী ব্যবসা চালু হয় কোন কারন ছাড়াই। ফলে যা ঘটার তাই ঘটে। কোন ব্যবসা শুরু করার আগে খুঁজে দেখতে হবে আপনি এই ব্যবসার মাধ্যমে সমাজে কি সমস্যার সমাধান করতে পারছেন।

ধরুন আপনার এলাকায় ইতিপূর্বে ৩ টি চুল কাটার সেলুন আছে, আপনি মনে করলেন তারা কেন একা ব্যবসা করবে তাই আপনিও একটি সেলুন ব্যবসা শুরু করে দিলেন। যদি যথেষ্ট চাহিদা না থাকে তাহলে আপনি এই ব্যবসায় লস খাবেন।

তবে হ্যাঁ, যদি দেখেন ওই ৩ টি সেলুনে সব সময়ই ভিড় থাকে এবং আরেকটি সেলুন দিলে ওই ভিড় লেগে থাকা গ্রাহক আপনি পাবেন তাহলে শুরু করতে পারেন। তাই যে কোন ছোট ব্যবসা শুরু করার আগে সমস্যা খুঁজতে হবে এবং আপনার ব্যবসার মাধ্যমে সমাধান দিতে হবে।

২. ব্যবসার সঠিক পরিকল্পনা নেই: ছোট ব্যবসা ব্যর্থ হওয়ার অন্যতম কারন পরিকল্পনা নেই বা সঠিক পরিকল্পনা নেই। আপনার ব্যবসায় কে বা কারা গ্রাহক হবে, ব্যবসার লোকেশন ঠিক আছে কিনা, প্রতিদ্বন্দ্বীরা কিভাবে ব্যবসা করছেন ইত্যাদি জানা না থাকলে ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। আরো পড়ুন – ব্যবসার জন্য বিজনেস প্ল্যান কিভাবে সাজাব

৩. অতিরিক্ত মালপত্র বা কম মালপত্র: নিরবচ্ছিন্ন ব্যবস্থাপনা ছোট ব্যবসাকে ব্যর্থ করতে সক্ষম। গ্রাহকের চাহিদা না বুজে অতিরিক্ত মালপত্র কিনে আপনি বিপদে পড়তে পারেন, আবার যেই মালপত্রের চাহিদা আছে তা না থাকলেও ব্যবসা ক্ষতি হতে পারে। তাই আপনার গ্রাহকের চাহিদা বুজেই ব্যবসা করতে হবে।

৪. ব্যবসার হিসাব না রাখা: ব্যবসা ছোট বলে অনেকেই হিসাব রাখে না। হিসাবকে বোঝা মনে না করে কত টাকা প্রতিদিন বিক্রি করছেন তা দিন শেষে মিলিয়ে নিন। তাহলেই আপনার আয় ও ব্যয় বুজতে পারবেন।

৫. অতিরিক্ত ব্যয়: ছোট ব্যবসা ব্যর্থ হওয়ার অন্যতম কারন অতিরিক্ত ব্যয়। কোন খাতে বেশী ব্যয় হচ্ছে এবং কি রকম ব্যয় তা জেনে নিন এবং কিভাবে সেই অতিরিক্ত ব্যয়কে কমাবেন তার পরিকল্পনা করুন।

৬. ব্যবসার অবস্থান: কোন অবস্থানে কি রকম ব্যবসা চলবে তা না জেনে ব্যবসা শুরু করলে লোকসান হওয়াই স্বাভাবিক। মার্কেট যাচাই করে সঠিক জায়গায় সঠিক ব্যবসা শুরু করাই উদ্যোক্তার কাজ।

৭. সাপোর্ট হিসাব যথেষ্ট টাকা না থাকা: সব টাকা দিয়ে একটি ব্যবসা শুরু করা ব্যবসায় ব্যর্থ হওয়ার অন্যতম কারন। যেকোন ব্যবসায় যে কোন সময়ে অতিরিক্ত টাকার প্রয়োজন হয়। কিন্তু আপনার কাছে যদি যথেষ্ট টাকা না থাকে তাহলে আপনি ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন।

তথ্যসুত্রঃ ইন্টারনেট


No comments: