জন্ম নিবন্ধন যাচাই করুন | জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

হেই কি অবস্থা সবার ? আপনি নিশ্চয়ই এখানে এসেছেন আপনার জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য?  যদি এমনটাই হয় তাহলে আপনাকে ভরসা দিচ্ছি যে এখান থেকে আপনি জন্ম নিবন্ধন চেক করার অথবা ডাউনলোড করার অথবা জন্ম নিবন্ধন প্রিন্ট করার সম্পূর্ণ প্রক্রিয়াটি জানতে পারবেন । অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করা খুব সহজ একটা কাজ যে কেউ চাইলে এটা করতে পারবে । 

জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে এখানে চাপ দিন

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

আপনি কি জানেন জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে আপনাকে আপনার জন্ম নিবন্ধন নাম্বার এবং জন্মতারিখ জানতে হবে।  জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য এখানে ক্লিক করুন । অথবা bris.lgd.gov.bd লিখে সার্চ করলেও পাবেন । 

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড করার নিয়ম । অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করা 

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোড করতে চাইলে অথবা জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে চাইলে বাংলাদেশ সরকারের জন্ম নিবন্ধন তথ্য ব্যবস্থা অথবা ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন যাচাই অথবা জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন। আপনি চাইলে গুগোল থেকেও বাথ সার্টিফিকেট চেক বাংলাদেশ লিখে সার্চ করলেও পারবেন । এখন আপনি নিচের মত একটি পেজ দেখতে পাবেন । 

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

যেহেতু অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন চেক করার জন্য বর্তমানে দুইটি ওয়েবসাইট এর প্রচলন রয়েছে তাই আমরা এখানে দুইটি ওয়েবসাইট থেকেই কিভাবে জন্ম নিবন্ধন চেক করবেন তা দেখানোর চেষ্টা করব । 

প্রথম ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন দুইটি ঘর রয়েছে প্রথম ঘরে আপনার জন্ম নিবন্ধনের যে এই নম্বরটি রয়েছে সেটি লিখতে হবে। এবং দ্বিতীয় ঘরটিতে আপনার জন্ম তারিখ লিখতে হবে।  ভেরিফাই অপশনে চাপ দিলে যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন সঠিক হয় তাহলে সঙ্গে সঙ্গে সকল তথ্য দেখতে পারবেন ।  

এখন নিচের ছবিটির দিকে খেয়াল করুন।  নতুন এই ওয়েবসাইটে জন্ম তারিখ লেখার ক্ষেত্রে একটু ভিন্নতা রয়েছে।  মানে সারা জীবন যেভাবে জন্মতারিখ লিখেছি এখানে তার উল্টা ভাবে লিখতে হবে। 

এখানে জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং জন্মতারিখ লিখে সার্চ করলে আপনি নতুন একটি পেজে চলে যাবেন যেখানে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর সকল তথ্য দেওয়া থাকবে।  নিচে অনলাইন জন্ম নিবন্ধন এর নমুনা কপি দেখানো হলো । 

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

উপরের যেই ওয়েবসাইটটির বা ছবিটি দেখতে পাচ্ছেন এটি ছিল পুরাতন ওয়েবসাইটের সিস্টেম।  কিন্তু বর্তমানে নতুন ওয়েবসাইটটিতে অন্যভাবে তথ্য দেখানো হয় । যার একটি নমুনা ছবি নিচে দেয়া হলঃ

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

যদি উপরে উল্লেখিত দুইটা ছবির একটা ছবিও না আসে অথবা যদি লেখা থাকে Matching birth records not found তাহলে বুঝতে হবে যে আপনার জন্ম নিবন্ধন এর নম্বর অথবা জন্ম তারিখ এ দুটির মধ্যে যেকোন একটিতে ভুল রয়েছে । অথবা আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে রেকর্ড হয়নি । 

জন্ম নিবন্ধন সনদ যাচাই করার পদ্ধতি । কিভাবে জন্ম নিবন্ধন যাচাই করবেন 

আশা করছি জন্ম নিবন্ধন চেক করার নিয়ম অলরেডি আপনি জানতে পেরেছেন।  নিশ্চয় এতক্ষণে কিভাবে জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোড করতে হয় সে সম্পর্কে ওয়াকিফহাল হয়েছেন।  আর এটাও আশা করছি এখন থেকে আপনাকে আর online birthday certificate check লিখে সার্চ করে সময় নষ্ট করতে হবে না । Bangladesh digital birth certificate download এ সম্পর্কে আরও তথ্য জানার থাকলে নিচের অংশটুকু মনোযোগ সহকারে পড়ুন । 

আপনি কি জানেন অনলাইন জন্ম নিবন্ধন তথ্য যাচাই ওয়েবসাইটে কি কি তথ্য দেওয়া থাকে? 

একটি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন যাচাই এর সময় আপনি ওটাতে যা যা দেখতে পাবেন তা হচ্ছে আপনার নাম,  ঠিকানা,  পিতা মাতার নাম,  লিঙ্গ,   জাতীয়তা ইত্যাদি । এছাড়াও জন্মনিবন্ধন কোন দিন ইস্যু করা হয়েছে এবং কোন জায়গা থেকে জন্ম সনদ তৈরি করা হয়েছে এসব তথ্য দেওয়া থাকে । এছাড়া আরেকটা মজার ব্যাপার হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন তথ্য অনলাইনে যাচাই করার সময় আপনার বয়স কত মাস কত বছর কত দিন সব কিছুই জানতে পারবেন । 

জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার ওয়েবসাইট এর সমস্যা এর সমাধান 

জন্ম নিবন্ধন যাচাই করার জন্য ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার সময় এ ধরনের একটা ইন্টারফেস দেখতে পাবেন । যেসকল ওয়েবসাইটের এসএসএল সার্টিফিকেট করা না থাকে তাদের বেলায় এই ধরনের ডিসপ্লে শো করে। এক্ষেত্রে আপনাকে অ্যাডভান্সড অপশনে চাপ দিতে হবে।  এ মুহূর্তে একসেপ্ট তারিখ এন্ড কন্ট্রোল নিয়ম বাটনে চেপে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে । 

অথবা উপরে প্রদর্শিত ছবিটির লাল চিহ্ন যুক্ত জায়গায় চাপ দিয়ে সামনে এগিয়ে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন । আশা করছি এই পদ্ধতিটি অনুসরণ করলে আপনি খুব সহজেই জন্ম নিবন্ধন করার জন্য ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে পারবেন খুব সহজে । 

অনলাইনে নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন।  অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন প্রক্রিয়া 

এখন আপনি ঘরে বসেই অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন করতে পারবেন।  যদি আপনি নিজে নিজে জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণ করতে চান তাহলে জন্মনিবন্ধনের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য এই বাটনে চাপ দিন।  নিচে প্রদর্শিত ছবির মত একটি ডিসপ্লে দেখতে পাবেনঃ 

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

এই পেজ থেকে ড্রপডাউন মেনু এর সাহায্যে আপনার বিভাগীয় শহর নির্বাচন করুন অথবা আপনি কোন বিভাগের লোক তা নির্বাচন করে দিন । বিভাগ নির্বাচন হয়ে গেলে পরবর্তী অপশনে চাপ দিয়ে পরের পৃষ্ঠায় চলে যান।  তাহলে জন্ম নিবন্ধন আবেদন করার ফরম টি আপনার সামনে চলে আসবে।  এখন আপনাকে নতুন পেজে প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো প্রদান করে পরবর্তী বাটনে চাপ দিতে হবে।  যদি সমস্ত তথ্য সঠিকভাবে নির্বাচন করার পরে নির্বাচিত নিবন্ধ কার্যালয়ে অনলাইন আবেদন সম্ভব নয় এমন লেখা আসে তাহলে বুঝতে হবে আপনার এলাকায় অর্থাৎ আপনি যে ইউনিয়ন পরিষদের অধীনে বসবাস করেন সেখানে এখনো পর্যন্ত অনলাইন জন্ম নিবন্ধন প্রক্রিয়া চালু হয়নি । জন্ম নিবন্ধন যাচাই অথবা জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

অনলাইন জন্ম নিবন্ধন আবেদনের অবস্থা যাচাই 

আপনি যদি অলরেডি অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম পূরণ করে থাকেন তাহলে আপনার জন্ম নিবন্ধন অনলাইন এর মাধ্যমে ট্রেকিং করতে পারবেন । অর্থাৎ আপনার জন্ম নিবন্ধন টি প্রস্তুত হয়েছে কিনা সে ব্যাপারে তথ্য জানতে পারবেন।  এজন্য আপনাকে এই লিঙ্কে চাপ দিতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

 উপরের চিত্রের মত একটি বক্স আসবে অথবা ইন্টারফেস আসবে এখান থেকে আপনাকে আপনার জন্ম সনদ রেজিস্ট্রেশন অ্যাপ্লিকেশন এর নম্বর দিয়ে get status বাটনে চাপ দিতে হবে । তাহলে আপনি আপনার অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদন এর বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে পারবেন ।

অরিজিনাল জন্ম নিবন্ধন কিভাবে ডাউনলোড করবেন ? অনলাইন থেকে জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোড প্রক্রিয়া 

আপনি মনে হয় নিচের ছবির মত অরিজিনাল জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোডের কথা বলছেন?  যদি এমনটা ভেবে থাকেন তাহলে আপনাকে এই মুহূর্তে একটা দুঃখের সংবাদ শোনাবো।  তা হচ্ছে আপনি নিচের চিত্রের মত অরিজিনাল জন্ম নিবন্ধন ডাউনলোড করতে পারবেন না।  

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড প্রক্রিয়া

এ ধরনের জন্ম নিবন্ধন এর জন্য আপনাকে আপনার এলাকার ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন আনতে হবে। তাই অরিজিনাল জন্ম নিবন্ধন অনলাইন থেকে ডাউনলোড করার জন্য খোঁজাখুঁজি না করে বরং ইউনিয়ন পরিষদের চলে যাওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।  কখনোই নকল জন্ম সনদ অথবা ভুঁয়া জন্ম নিবন্ধন বানানোর চেষ্টা করবেন না কারণ এটি একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ । 

F.A.Q 

প্রশ্ন: জন্ম নিবন্ধন কি? (সোর্স)

উত্তর: জন্ম নিবন্ধন হলো জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন, ২০০৪ (২০০৪ সনের ২৯ নং আইন) এর আওতায় একজন মানুষের নাম, লিঙ্গ, জন্মের তারিখ ও স্থান, বাবা-মায়ের নাম, তাদের জাতীয়তা এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্ধারিত নিবন্ধক কর্তৃক রেজিস্টারে লেখা বা কম্পিউটারে এন্ট্রি প্রদান এবং জন্ম সনদ প্রদান করা।

প্রশ্ন: জন্ম নিবন্ধন কি কি কাজে লাগে?

উত্তর: ক) পাসপোর্ট ইস্যু খ) বিবাহ নিবন্ধন গ) শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি ঘ) সরকারী, বেসরকারী বা স্বায়ত্বশাসিত সংস্থায় নিয়োগদান ঙ) ড্রাইভিং লাইসেন্স ইস্যু চ) ভোটার তালিকা প্রণয়ন ছ) জমি রেজিষ্ট্রেশন জ) ব্যাংক হিসাব খোলা ঝ) আমদানি ও রপ্তানী লাইসেন্স প্রাপ্তি ঞ) গ্যাস, পানি, টেলিফোন ও বিদ্যুৎ সংযোগ প্রাপ্তি ট) ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর (টিআইএন) প্রাপ্তি ঠ) ঠিকাদারী লাইসেন্স প্রাপ্তি ড) বাড়ির নক্সা অনুমোদন প্রাপ্তি ঢ) গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন প্রাপ্তি ন) ট্রেড লাইসেন্স প্রাপ্তি ও ত) জাতীয় পরিচয়পত্র প্রাপ্তি।

প্রশ্ন: জন্ম নিবন্ধন আবেদন প্রক্রিয়া ?

উত্তর: জন্ম নিবন্ধনের নির্ধারিত আবেদন ফরমে (ছাপানো বা হাতে লিখা হলেও চলবে) নিবন্ধকের নিকট নিম্নে বর্ণিত দলিল বা প্রত্যয়নসহ আবেদন করতে হবে। এছাড়াও br.lgd.gov.bd ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে সংশ্লিষ্ট নিবন্ধকের কার্যালয় বরাবর অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন আবেদন করতে পারবেন। আবেদনের প্রিন্ট কপি নিবন্ধন অফিসে দাখিল করলে নিবন্ধক জন্ম নিবন্ধন করতে পারবেন (অনলাইনে আবেদন করতে ক্লিক করুন )।

নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির জন্মের পাঁচ বৎসরের মধ্যে আবেদন করা হলে-

তথ্য সংগ্রহকারীর প্রত্যয়ন, অথবা

ইপিআই কার্ডের সত্যায়িত অনুলিপি, অথবা

সংশ্লিষ্ট চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের ছাড়পত্র বা উক্ত প্রতিষ্ঠান হইতে প্রাপ্ত জন্ম সংক্রান্ত সনদের সত্যায়িত অনুলিপি, অথবা

নিবন্ধক যেরূপ প্রয়োজন মনে করেন জন্ম সংক্রান্ত সেরূপ অন্য কোন দলিলের সত্যায়িত অনুলিপি, অথবা

তথ্য সংগ্রহকারী হিসাবে নিবন্ধক কর্তৃক নির্দিষ্টকৃত কোন এনজিও কর্মীর প্রত্যয়ন।

নিবন্ধনাধীন ব্যক্তির জন্মের পাঁচ বৎসর পরে আবেদন করা হলে-

বয়স প্রমাণের জন্য এমবিবিএস ডাক্তারের এবং জন্মস্থান বা স্থায়ীভাবে বসবাসের স্থান প্রমাণের জন্য সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলর/সদস্যের প্রত্যয়ন, অথবা

বয়স ও জন্মস্থান প্রমাণের জন্য তথ্য সংগ্রহকারী হিসাবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ বা প্রধান শিক্ষক বা তৎকর্তৃক মনোনীত শিক্ষক বা কর্মকর্তার প্রত্যয়ন, অথবা

বয়স ও জন্মস্থান প্রমাণের জন্য ইপিআই কার্ড বা পাসপোর্ট বা মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট বা কোন চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানের জন্ম সংক্রান্ত ছাড়পত্র বা উক্ত প্রতিষ্ঠান হইতে প্রাপ্ত জন্ম সংক্রান্ত সনদের সত্যায়িত অনুলিপি, অথবা

নিবন্ধক যেরূপ প্রয়োজন মনে করেন জন্ম সংক্রান্ত সেরূপ অন্য কোন দলিলের সত্যায়িত অনুলিপি, অথবা

তথ্য সংগ্রহকারী হিসাবে নিবন্ধক কর্তৃক নির্দিষ্টকৃত কোন এনজিও কর্মীর প্রত্যয়ন।

প্রশ্ন: জন্ম তথ্য প্রদানকারী কারা?

উত্তর: শিশুর পিতা বা মাতা বা অভিভাবক শিশুর জন্মের ৪৫ দিনের মধ্যে জন্ম সংক্রান্ত তথ্য নিবন্ধকের নিকট প্রদানের জন্য দায়ী থাকবেন।

এছাড়া নিম্নবর্ণিত ব্যক্তিগণ কোন ব্যক্তির জন্ম নিবন্ধনের জন্য নিবন্ধকের নিকট তথ্য প্রেরণ করতে পারবেন:

ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, এবং সচিব;

গ্রাম পুলিশ;

সিটি কর্পোরেশন বা পৌরসভার কাউন্সিলর;

ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন অথবা ক্যান্টনমেন্ট এলাকায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মী ও পরিবার কল্যাণকর্মী;

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সেক্টরে নিয়োজিত বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের (এনজিও) মাঠকর্মী;

কোন সরকারী বা বেসরকারী হাসপাতাল বা ক্লিনিক বা মাতৃসদন বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে জন্মগ্রহণের ক্ষেত্রে উহার দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিক্যাল অফিসার অথবা ডাক্তার বা ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা;

নিবন্ধক কর্তৃক নিয়োজিত অন্য কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারী;

জেলখানায় জন্মের ক্ষেত্রে জেল সুপার বা জেলার বা তৎকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত ব্যক্তি;

পরিত্যক্ত শিশুর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা;

নির্ধারিত অন্য কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান।

প্রশ্ন: জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন কোথায় করবেন ?

উত্তর: ব্যক্তির জন্ম স্থান বা স্থায়ী ঠিকানা বা বর্তমানে বসবাস করছেন এমন যে কোন স্থানের নিবন্ধকের কাছে জন্ম নিবন্ধন করানো যাবে এবং কোন ব্যক্তি যে এলাকায় মৃত্যু বরণ করবেন সে এলাকার নিবন্ধকের কাছে মৃত্যু নিবন্ধন করাতে হবে।জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধনের জন্য নিম্নবর্ণিত ব্যক্তিগণ নিবন্ধক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন:

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বা সরকার কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা বা সদস্য;

পৌরসভার মেয়র বা তৎকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত অন্য কোন কর্মকর্তা বা কাউন্সিলর;

সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বা তৎকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা বা কাউন্সিলর;

ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট বা তৎকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা; ও

বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত বা তৎকর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কোন কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন ও গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় জোনাল এক্সিকিউটিভ অফিসারগণ চট্টগ্রমা, খুলনা ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনসমূহে সাধারণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলরগণ, বরিশাল, সিলেট ও রংপুর সিটি কর্পোরেশনে প্রধান কার্যালয়ে এবং নারায়ণগঞ্জ ও কুমিল্লা সিটি কর্পারেশনে পুরাতন পৌরসভা কার্যালয়ের কর্মকর্তাগণ জন্ম নিবন্ধকের দায়িত্ব পালন করছেন।

এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এর এলাকা ভিত্তিক ওয়ার্ড ও অঞ্চলের তথ্য দেখতে ঢাকা দক্ষিণ ও ঢাকা উত্তর নামের উপর ক্লিক করুন।

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম কোথায় পাওয়া যাবে ?

জন্ম নিবন্ধন অথবা মৃত্যু নিবন্ধন আবেদন ফরম এর জন্য আপনাকে br.lgd.gov.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে অথবা এখানে চাপ দিয়ে ডাউনলোড করতে পারবেন। 

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করা যাবে কি? 

 আপনি অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারবেন কিন্তু আবেদন করার পর আবেদন কপি প্রিন্ট করে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ অথবা সিটি কর্পোরেশনে জমা দিতে হবে।  অনলাইনে জন্ম নিবন্ধনের আবেদন করতে চাইলে br.lgd.gov.bd ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন অথবা এখানে ক্লিক করুন ।জন্ম নিবন্ধন যাচাই অথবা জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

বিদেশে জন্ম হলে দেশে জন্ম নিবন্ধন করার প্রক্রিয়া? 

বাংলাদেশ সরকারের জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন এর ধারা অনুসারে নিবন্ধকের কার্যালয় এর অধীনে জন্মগ্রহণকারী অথবা মৃত্যুবরণকারী অথবা স্থায়ীভাবে বসবাসকারী দের জন্য জন্ম নিবন্ধন বা মৃত্যু নিবন্ধন করার বিধান রয়েছে। বিদেশের জন্মগ্রহণ অথবা মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হিসেবে বিদেশে জন্ম-মৃত্যুর যথাযথ প্রমাণ দাখিল করতে পারলে দেশে স্থায়ী ঠিকানায় নিবন্ধকের নিকট থেকে জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন করতে পারবেন।  পাশাপাশি প্রবাসী 2016-31-ডিসেম্বর দেশে জন্ম জন্য স্থায়ী ঠিকানা দূতাবাসের মাধ্যমে জন্ম নিবন্ধন করতে পারবেন । 

নতুন জন্ম নিবন্ধন করার সময় কি মেনুয়াল খাতায় লিখতে হবে? 

নতুন জন্ম নিবন্ধন করার জন্য জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত ওয়েবসাইট এর নতুন জন্ম নিবন্ধন নামের মেনুতে ক্লিক করে বাংলা অথবা ইংরেজি অথবা উভয় ভাবে ফরম পূরণ করে সংরক্ষন করলেই নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য তালিকাভুক্ত হবে। তাই নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদনের জন্য মেনুয়ালি কোন খাতা বা প্রস্তুতি লেখার প্রয়োজন নেই । 

একই ব্যক্তি কতবার জন্ম নিবন্ধন করতে পারবে ? 

একজন ব্যক্তি শুধুমাত্র একটি জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে পারবে?  একের অধিক জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার চেষ্টা অথবা এ ধরনের কাজের সাথে সম্পৃক্ত থাকা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ । যা জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন 2004 এর 21 ধারায় উল্লেখ রয়েছে । জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত আরো কোনো প্রশ্ন থাকলে এই পোস্টটি শুরু থেকে মনোযোগ সহকারে পড়ুন । জন্ম নিবন্ধন যাচাই অথবা জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন লিঙ্ক । জন্ম নিবন্ধনের অনলাইন কপি ডাউনলোড 

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন 2004 

জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন ইউনিয়ন পরিষদ

 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন পৌরসভা

 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সিটি কর্পোরেশন

 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড

 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন সম্পর্কিত বিভিন্ন গেজেট অথবা প্রজ্ঞাপন

 জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা বা দূতাবাস 2006

 জন্ম মৃত্যু নিবন্ধন আইন 2004 এর বিধান বিধি লঙ্ঘনকারী বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে নেওয়া বিভিন্ন ঘটনায় সমূহের বর্ণনা

যদি আপনি এতক্ষণ পর্যন্ত আর্টিকেলটি পড়ে থাকেন তাহলে আপনার ধৈর্যের সীমা দেখে আমি তো অবাক। তারপরেও যদি এই পোস্টটি আপনার উপকারে আসে তাহলে সামাজিক কাজে লেগে পড়ুন অর্থাৎ এই পোস্টটি আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে শেয়ার করে দিন। তাহলে আপনার পরিচিত অন্য কেউ হয়তো এই পোস্টটি থেকে উপকৃত হবে।  কোন মতামত কমেন্ট জানান । জন্ম নিবন্ধন যাচাই অথবা জন্ম নিবন্ধন চেক করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন





কমেন্ট করুন

1 Comments

  1. আমার পুরাতন হাতে লিখা জন্ম সনদ অনলাইন করবো কিভাবে??

    ReplyDelete