চুল সিল্কি করার ঘরোয়া উপায়

সুন্দর এবং কালো ঘন চুলের প্রশংসা শুনতে অভ্যস্ত। তাই আমরা প্রত্যেক নারীগণ চুলের সৌন্দর্য নিয়ে আশঙ্কা হয়ে থাকি।তবে চুল ঘন কালো লম্বা এবং সিল্কি হয়ে থাকে তাহলে আমাদের নারীদের দেখতে আরো সুন্দর লাগে। আমরা সব সময় চাই আমাদের চুল সিল্কি লম্বা এবং ঝরঝরে হলে ভালো হয়। আমাদের চুল গুলো যেন বাতাসের মতো হালকা উড়ে বেড়ায় সেটা দেখতে আরো ভালো লাগে। তাই আজকে আমি আপনাদের বলব কিভাবে আপনারা আপনাদের চুল সিল্কি রাখবেন । ঘরোয়া ভাবে চুল সিল্কি করার কিছু উপায় বলে দেবো।

বর্তমান যুগে নারীদের পাশাপাশি ছেলেরা চুলের সৌন্দর্য বা যত্ন নিয়ে ভীষণ ব্যস্ত হয়ে পড়েছে । বর্তমান ছেলেরাও এখন আর পিছিয়ে নেই । প্রিয়জনের সঙ্গে চলতে হলে তারা এই চিন্তাটাই করে থাকে। তাই তারা সাধারণত ভেবে থাকে  চুল   সিল্কি কিভাবে করা যায়। তাই আমি এখন বলে দেব ছেলে মেয়ে উভয়েই জন্য চুলের যত্ন নেওয়া খুবই জরুরী। 

আমরা সাধারণত হাটে বাজারে যেসব কেমিক্যালযুক্ত কিছু প্রোডাক্ট ব্যবহার করে থাকি। আসলে সেগুলো অনেক নামি দামি ব্র্যান্ডের কেমিক্যালযুক্ত কিছু প্রোডাক্ট । প্রোডাক্ট গুলো আমাদের চুলের জন্য ক্ষতিকর। আমরা অনেকেই পার্লারে গিয়ে হাজার হাজার টাকা খরচ করে চুল সিল্কি স্কিন লম্বা কালো বিভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকি। 

আপনি যদি এসব না করে ঘরে বসে অতি দ্রুত আপনার হাতের কাছে কিছু প্রোডাক্ট তৈরি করে নিতে পারেন, তাহলে অনেক ভালো হয়। তাহলে চলুন ঘরে বসে ঘরোয়া পদ্ধতিতে কিভাবে চুল সিল্কি তা নিয়ে আলোচনা শুরু করি । 

১.অ্যালোভেরা জেল ও লেবুর রস 

অ্যালোভেরা জেল ত্বকের জন্য যেমন উপকারী চুলের জন্য অনেকটাই উপকারী ।এখন আমি অনেকগুলো অপশন দিয়ে আপনাদের বুঝিয়ে দেবো। তবে অ্যালোভেরা জেল সব থেকে বেশি উপকারী।  সাধারণত অ্যালোভেরা জেল চুলের জন্য সঠিক পুষ্টি জোগাতে সাহায্য করে এর সাথে কোন জুড়ি নেই । এর সঙ্গে লেবুর মিশ্রণ মিশিয়ে নিতে হবে। লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা সাধারণত চুলের বৃদ্ধি বজায় রেখে আপনার চুলকে করবে সিল্কি, সুন্দর, কালো, লম্বা করে তুলবে। অ্যালোভেরা জেল ও লেবুর রস মিশ্রণ কিভাবে বানাবেন ? 

আমরা সাধারণত যেই শ্যাম্পু ব্যবহার করে থাকি। ওই শ্যাম্পু দিয়ে খুব ভালো করে চুল ধুয়ে নিব । তারপর একদম শুকিয়ে নিন। একটা বাটিতে এক চামচ অ্যালোভেরা জেল আধা চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন । অ্যালোভেরা জেল ও লেবুর রস মিশ্রণ এর কাজ করতে হবে একদম ন্যাচারাল কন্ডিশনার এর মত ।

অ্যালোভেরা জেল ও লেবুর রস আপনার চুল অনুযায়ী পরিমাণমতো নিয়ে নেবেন । চুল ঘন বা লম্বা যদি থাকে তাহলে পরিমাণে বেশি লাগবে। মিশ্রণটি হয়ে গেলে এরপর আপনি আপনার চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ম্যাসাজ করতে হবে । এটার ব্যবহার হচ্ছে আমরা ঠিক যেভাবে মাথায় তেল ব্যবহার করি ঠিক ঐভাবে। 15 থেকে 20 মিনিট রেখে দিন। তারপর নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 

২. পাকা কলা ও মধুর প্যাক,

কলাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে কার্বন ডাই কার্বোহাইডেট ,পটাশিয়াম ও ভিটামিন ম্যাগনেসিয়া,আইরন। মধুতে রয়েছে ভিটামিন বি ও ক্যালসিয়াম । কলা চুলকে দ্রুত লম্বা ঝলমলে করে। খোলা চুলের খুশকি দূর করার সাথে সাথে চুলের রুক্ষতা দূর করে থাকে চুল পড়া থেকে সাহায্য করে।

মধুতে রয়েছে ভিটামিন বি ও ক্যালসিয়াম । চুলের জন্য মধুর কার্যকর হচ্ছে,  চুল ভেঙে যাওয়া থেকে দূর করে, চুলের পুষ্টি বৃদ্ধি ও উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে থাকে । চুল সিল্কি লম্বা ও ঘন করে এবং খুব সুন্দর করে।পাকা কলা ও মধুর মিশ্রণ কিভাবে তৈরি করবেন ।

একটি পাকা কলা নিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন। একটি বাটিতে ঢেলে এর সঙ্গে দুই চামচ মধু এবং এক চামচ নারিকেল তেল নিয়ে ভালো করে মিশ্রণটি তৈরি করে ফেলুন। এরপর মিশ্রণটি চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ম্যাসাজ করুন। 5থেকে 7 মিনিট দিয়ে রাখুন। এই প্যাকটি সপ্তাহে দুইবার ব্যবহার করতে হবে।  এই প্যাক টি ব্যবহার করার পর আপনার চুল পড়া বন্ধ হয়ে যাবে এর সাথে আপনার চুলকে সিল্কি করবে এবং সুন্দর হবে। 

৩.মধু ও লেবুর প্যাক চুলকে সিল্কি করে 

চুল সুন্দর করা, চুল পড়া, রুক্ষ হওয়া, লম্বা করা, চুল সিল্কি করার জন‌্য  ডিম, মধু ও লেবুর প্যাক এই তিনটি উপাদান ব্যবহার করুন। এই তিনটি উপাদান খুবই কার্যকরী । ডিমে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে সালফার যা আপনার চুল গোড়া থেকে মজবুত করে। 

লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি সাইট্রিক এসিড অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা চুলকে পুষ্টি বৃদ্ধি করে তুলে। মধু চুলকে সিল্কি করে ও চুলের ফাটা রোদ দুর করে । 

প্রথমে একটি পাত্রে দুটি ডিমের সাদা অংশ নিয়ে তার সাথে 2 টেবিল চামচ মধু 1 চা চামচ লেবুর রস 2 চা চামচ নারকেল তেল একসঙ্গে মিশিয়ে নেব ।এই মিশ্রণটি সাধারণত গোসল করার আগ মুহূর্তে এক থেকে দেড় ঘন্টা  ‍চুলে লাগিয়ে রাখুন। তারপর এক থেকে দেড় ঘন্টা পর আমরা সাধারণত যে যেই শ্যাম্পু ব্যবহার করে থাকি সেই শ্যাম্পু দিয়ে মাথার  চুল ধুয়ে ফেলুন । ভালো করে মাথার চুল ধুয়ে নিতে হবে, যেন কোনো ভাবেই ডিমের গন্ধ না থাকে।  এই প্যাকটি সপ্তাহে একবার নিয়মিত ব্যবহার করুন। আপনার চুলকে করবে সিল্কি ।

৪.চাল ধোয়া পানি

আমরা হয়তো অনেকে জানিনা।  চাল  ধোয়া পানি  চুলের জন্য উপকারী।  তবেচাল ধোয়া পানি ও ভাতের মাড় এই দুটো রূপচর্চার ক্ষেত্রে অনেক বেশি কার্যকরী। চুলকে সিল্কি করে তোলে।

ভাতের মাড় ও চাল ধোয়ার পানি। অনেক পুষ্টিকর তাই নিয়মিত চুলের জন্য ব্যবহার করলে চুল সিল্কি ঝরঝরে লম্বা ও কালো করে। এর সঙ্গে অল্প পরিমাণে অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন ।

ব্যবহারের পদ্ধতি

অল্প পরিমাণে চাউল নিয়ে সারা রাতের জন্য ভিজিয়ে রাখব। দীর্ঘক্ষণ চাল ভিজিয়ে রাখার কারণে চাউল এর পুষ্টিগুণ বৃদ্ধি পাবে।  একটা ছাকনিতে চাউল গুলো সেঁকে নেব। এরপর শুধু পানিটুকু ব্যবহারের জন্য নিয়ে নেব।  পরিমান মত চালের পানি নিয়ে দুই চামচ অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন ।মিশ্রণটি পুরা চুলে আধা ঘণ্টা লাগিয়ে রাখুন।  এরপর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন ।

এছাড়াও শ্যাম্পুর সাথে মিক্স করে ব্যবহার করতে পারেন । এই পদ্ধতিতে শ্যাম্পু ব্যবহার করলে চুল সিল্কি উজ্জ্বল ও ঝরঝরে হবে এটি নিয়মিত পালন করুন ।

৫.ডিম ও দুধের হেয়ার প্যাক

ডিমে আছে উচ্চমাত্রার প্রোটিন । ডিম রুক্ষ চুল পুষ্টি জাগিয়ে তোলে ও ঝলমলে করে। কাঁচা দুধ চুলকে সিল্কি করার উপায় হিসেবে ভালো কাজ করে। আমরা সাধারণত 4 টি উপকরণ দিয়ে হেয়ার মাক্সটি 

 তৈরি করে নেব।

 ডিমের সঙ্গে  কাঁচাদুধ ও মধুর সঙ্গে ডিম মিশিয়ে নেব। এই মিশ্রণটির জন‌্য আরও চুলের পুষ্টি গুন বেড়ে যাবে।  যা চুলের জন্য কার্যকারী। 

উপকরণ

  •  মধু 2 চামচ।
  •  ডিম 1 পিস।।
  •  কাঁচা দুধ ৩ চামচ।
  • অলিভ অয়েল ২ চামচ ।

ব্যবহারের পদ্ধতি

  • একটি বাটিতে কুসুম অবস্থায় একটি ডিম নিন।
  • মধু 2 চামচ ,কাঁচা দুধ তিন চামচ,অলিভ অয়েল 2 চামচ ,এই সব উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিন।
  • এরপর তৈরি হয়ে যাবে আপনার চুল সিল্কি করার পেস্ট।
  • যারা ডিম  পছন্দ করেন না তারা টকদই দিতে পারেন।
  • চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগিয়ে রাখুন।
  • 30 থেকে 40 মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। 

৬. নারকেলের দুধ ও লেবুর রসের হেয়ার প্যাক

নারকেলের দুধ চুলের কন্ডিশনারের কাজ করে ও চুল সিল্কি করে। এর সঙ্গে লেবুর রস মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণ ভিটামিন সি এর ঘাটতি দূর করে ।এবং চুলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে সাহায্য করে। এই মিশ্রণটি নিয়মিত ব্যবহার করুন। কোমল ও উজ্জ্বল করতে সাহায্য করবে।

 উপকরণ

  •  লেবুর রস
  •  নারকেলের দুধ

 ব্যবহারের পদ্ধতি

  •  একটি বাটিতে পরিমাণমতো লেবুর রস নারিকেল দুধ মিশিয়ে নিন
  •  সারা রাতের জন্য নরমাল ফ্রিজে রেখে দিন। 
  • পরেরদিন গোসলের 30 মিনিট আগে মিশ্রণটি চুলে ভালো করে লাগিয়ে রাখুন।
  • 30 মিনিট পর শ্যাম্পু দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে নিন।

৭. শ্যাম্পুর সাথে চিনির মিশ্রন

চিনি ত্বকের জন্য বেশ কার্যকরী। কিন্তু চিনি স্বাস্থ্য  জন্য খুব ক্ষতিকর। আমরা ত্বকের জন্য চিনি ব্যবহার করে থাকি। শ্যাম্পুর সঙ্গে সামান্য পরিমাণে চিনি নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এর সাথে সামান্য পরিমাণে লেবুর রস  অ্যাড করুন। চুল সিল্কি করে ও খুশকি দূর করে।

উপকরণ

  • চিনি, লেবুর রস ,শ্যাম্পু,

ব্যবহারের পদ্ধতি

  • যে কোন ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু পরিমাণমতো নিয়ে নিন।
  • চিনি ও লেবুর সঙ্গে  পরিমাণমতো শ্যাম্পু মিশিয়ে নিন।
  • আমরা সাধারণত যেভাবে  শ্যাম্পু ব্যবহার করি ।ঠিক ঐ ভাবে প্যাকটি মাথায় ব্যবহার করুন
  • শ্যাম্পু করা শেষ হয়ে গেলে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

ব্যবহারের নিয়ম সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন ব্যবহার করুন। লেবুর রস চুলকে সিল্কি করতে সাহায্য করে সেইসাথে তিনি ত্বকের মৃত কোষ দূর করে এবং চুল ঝলমলে করে।

৮. কলা ও পেঁপের হেয়ার মাক্স

পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন যা চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখে এবং চুলকে সিল্কি।

উপকরণ 

  • পাকা কলা ১ পিস
  • পরিমাণমতো পাকা পেঁপে।  

ব্যবহারের পদ্ধতি

  • একটি পাকা কলা ভালো করে চটকে নিতে হব । 
  • এর সঙ্গে পাকা পেঁপের বড় একটা টুকরা নিয়ে নিন। 
  • এরপর এ 2 টি উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। 
  • এই মিশ্রণটি চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত ভালভাবে লাগিয়ে নিন।
  •  30 থেকে 40 মিনিট পর কিছুটা শুকিয়ে গেলে শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে ধুয়ে নিন। 

৯.চুল সিল্কি এর জন্য ভিনেগারের কাজ

1 চা-চামচ সাদা ভিনেগার এর সঙ্গে এক মগ পানি ও অল্প পরিমাণে নারিকেল তেল|গরম নারিকেল তেল|

তিনটি উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ভালো করে ঘষে লাগিয়ে নিন| হালকা গরম করে নিতে হবে|| তারপর চলে দিয়ে রাখুন 15 থেকে 20 মিনিট| তারপর শ্যাম্পু দিয়ে ভালো করে চুল ধুয়ে ফেলুন|

১০.চুল সিল্কি জন্য গরম তেল

চুলের প্রদান পুষ্টি জোগাতে সাহায্য করে তেল | আর সেটা যদি হয় গরম তেল তাহলে আরো ভালো হয়| চুলের রুক্ষতা দূর করে ও উজ্জ্বল করে এবং যদি মাথায় এলার্জি থাকে গরম তেলে খুব কার্যকারী| অলিভ অয়েল তেল ও বাদাম তেল এই দুই উপকরণ মিশিয়ে নিন  2 টেবিল চামচ বাদাম তেল ও পরিমাণমতো অলিভ অয়েল নিয়ে নিন | এই দুটি যদি না থাকে তাহলে সাধারণত আমরা যে তেল ব্যবহার করি|সেটা নিয়ে নিন |এরপর তেল হালকা গরম করে মাথার চুলের গোড়ায় ভালো করে লাগিয়ে ফেলুন|

15 থেকে 20 মিনিট রেখে দিন| এর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন| 

শেষ কথা 

চুল সিল্কি করার উপায় সম্পর্কে উপর আলোচনা করেছি।  যারা চুলের যত্ন,  চুল ঘন কালো করার উপায়, চুল লম্বা করার উপায় সেইসাথে চুল পড়া বন্ধ করার উপায় জানতে চাই আশা করছে তাদের জন্য উপরে বর্ণিত আর্টিকেলটি কাজে আসবে। 

 চুল ঘন করার উপায়,  চুল পড়া বন্ধ করার উপায়,  চুল সিল্কি করার উপায়,  চুল-সোজা-করার-উপায় সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়মিত চোখ রাখুন। যদি কোনো পরামর্শ থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট সেকশনে কমেন্ট করার জন্য আমন্ত্রণ রইল।  আপনি চাইলে এই আর্টিকেলটি আপনার সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্টে শেয়ার করতে পারেন। 

কমেন্ট করুন

0 Comments